শিরোনাম :
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পানিতে যা মিশিয়ে তৈরি করবেন ভেষজ মানসিক চাপ দূর করে লবঙ্গ সূর্যের আলো কি করোনা মারতে পারে? হঠাৎ তীব্র গরম, সোমবারের অপেক্ষায় সিলেটের মানুষ ছাতক উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি বাবলু এর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল নবীগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা এমপি মিলাদের সাথে পরামর্শ সভা ক্যানসার প্রতিরোধ করে টমেটো হাটহাজারী মাদ্রাসায় চিরনিদ্রায় শায়িত বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক রাহবার আল্লামা শফী দাঁতের অসহ্য যন্ত্রণায় যা করবেন সিলেটে একদিনে করোনায় আক্রান্তের চেয়ে সুস্থ দ্বিগুণ সিলেটে শনিবার ৯ ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে যেসব এলাকায় আল্লামা শফী আর নেই সুগারের মাত্রা কত হলে বুঝবেন আপনার ডায়াবেটিস রসুন যেভাবে ওজন কমায় লঞ্চে নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা, সেই ব্যক্তি গ্রেপ্তার শুক্র-শনিবার নগরীর যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ থাকবে না নবীগঞ্জে বাবার বিরুদ্ধে নিজ মেয়েকে ধর্ষনের অভিযোগ নেইমার নিষিদ্ধ ২ ম্যাচ একসঙ্গে হেঁটে যাওয়া ছাত্র-ছাত্রীকে আটকে মারধর, ছাত্রীর আপত্তিকর ছবি তুলে টাকা দাবি বন্দরবাজার জুয়ার আসরে পুলিশের হানা, আটক ২ ইউএস-বাংলায় এইচএসসি পাসে চাকরি সিলেটের ওসমানীসহ ১২টি হাসপাতালে বন্ধ হচ্ছে করোনা চিকিৎসা নব গঠিত বিশ্বনাথ উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদল কে ছাত্রনেতা তানিমের অভিনন্দন নবীগঞ্জে ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে রাস্তা ও ড্রেনেজ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন এমপি মিলাদ জাতিসংঘের তিন সংস্থার নির্বাহী বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত বাংলাদেশ আগের শর্তেই খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ল নভেম্বরেই সাধারণের জন্য টিকা আনবে চীন বুয়েটের আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ২৫ আসামির বিচার শুরু টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দিল আরব আমিরাত নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত বাংলাদেশি চিকিৎসক
রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:২৭ অপরাহ্ন




৩ দিনে পেঁয়াজ কেজিতে বেড়েছে ৩০ টাকা

প্রতিবেদকের নাম / ২২ Time View
আপডেটের সময় : সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ  ভারতে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির খবরে দেশেও পেঁয়াজের দামে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। মাত্র তিনদিনে কেজিতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৩০ টাকা। হুট করে এমন দাম বাড়ায় বাড়তি পেঁয়াজ কিনে মজুদ করেছেন ক্রেতারা।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে ভারত রপ্তানি বন্ধ করলে দেশের বাজারে হু হু করে দাম বেড়ে পেঁয়াজের কেজি রেকর্ড ২৫০ টাকা পর্যন্ত উঠে। এ কারণেই অজানা শঙ্কায় ক্রেতারা বাড়তি পেঁয়াজ কিনেছেন। ক্রেতা ও বিক্রেতাদের কথাতে তেমন আভাসই পাওয়া গেছে।

বিক্রেতারা জানিয়েছেন, গত শুক্রবার থেকে পেঁয়াজের দাম বাড়া শুরু হয়। এরপর শনি ও রোববার দুই দিনেই খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। প্রথম দফায় শুক্রবার কেজিতে পেঁয়াজের দাম বাড়ে ১০ টাকা। শনিবার বাড়ে ১৫ টাকা এবং রোববার কেজিতে আরও ৫ টাকা বাড়ে। তবে সোমবার নতুন করে পেঁয়াজের দাম বাড়েনি।

ব্যবসায়ীদের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবারের আগে ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের কেজি ছিল ৪০-৪৫ টাকা। যা শুক্রবার বেড়ে ৫০-৫৫ টাকা হয়। শনিবার ও রোববার দাম বেড়ে তা এখন ৬৫-৭৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। অপরদিকে আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি শুক্রবারের আগে ছিল ২৫-৩০ টাকার মধ্যে। এখন তা ৬০ টাকা হয়েছে।

পেঁয়াজের দামের বিষয়ে মালিবাগ হাজীপাড়া বৌ-বাজারের ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর বলেন, গত বৃহস্পতিবারও দেশি পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকা এবং আমদানি করা পেঁয়াজ ২৫ টাকায় বিক্রি করেছি। কিন্তু শুক্রবার শ্যামবাজারে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে দেখি দাম বেড়েছে। দাম বাড়ায় পাঁচ বস্তা পেঁয়াজ নিয়ে এসেছিলাম। ৫৫ টাকা কেজি বিক্রি করা ওই পেঁয়াজ শনিবার দুপুরের আগেই শেষ হয়ে যায়।

‘এরপর শনিবার শ্যামবাজারে গিয়ে দেখি পেঁয়াজের দাম আরও বেড়েছে। দাম আরও বাড়তে পারে সেই আশঙ্কায় ১০ বস্তা পেঁয়াজ এনেছি। কেজি বিক্রি করছি ৬০ টাকা। দাম বাড়ার কারণে মানুষ বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ কিনছে। আট বস্তা পেঁয়াজ শেষ হয়ে গেছে। আর দুই বস্তা আছে। আজই হয় তো এগুলো বিক্রি হয়ে যাবে’ বলেন জাহাঙ্গীর।

তিনি আরও বলেন, রোববারও (৬ সেপ্টেম্বর) পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। গতকাল যারা পেঁয়াজ এনেছে তারা ৬৫ টাকা কেজি বিক্রি করছে। আর বাছাই করা পেঁয়াজের কেজি বিক্রি করছে ৭০-৭৫ টাকা। আমার আগে কেনা তাই ৬০ টাকা কেজি বিক্রি করছি।

রামপুরায় ৭০ টাকা কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করা কবির মোল্লা বলেন, দাম বাড়ার খবরে শনিবার ও রোববার পেঁয়াজ কেনার এক প্রকার হিড়িক পড়ে। দুই দিনে ১০ বস্তা পেঁয়াজ বিক্রি করেছি। এর আগে দুই দিনে এতো বেশি পেঁয়াজ বিক্রি করিনি। তবে আজ বিক্রির পরিমাণ কম। আসলে যার যা মজুদ করার তা গত দুই দিনেই করে ফেলেছে।

তিনি বলেন, হুট করে দাম বাড়ায় মানুষ ভয় পেয়েছে। কারণ গত বছরের সেপ্টেম্বরে ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করায় দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছিল। আমরাই ২৫০ টাকা কেজি বিক্রি করেছি। এবারও সেই সেপ্টেম্বরে খবর ছড়িয়েছে ভারতে বৃষ্টিতে পেঁয়াজ নষ্ট হয়েছে এবং দাম বেড়েছে। এ কারণেই হয়তো আবার যেন গত বছরের পরিস্থিতির মুখে পড়তে না হয়, সে জন্য অনেকে বাড়তি পেঁয়াজ কিনেছেন।

খিলগাঁওয়ে বাছাই করা দেশি পেঁয়াজ ৭৫ টাকা কেজি বিক্রি করা মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, গত বছর যেভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়া শুরু হয়েছিল এবারের লক্ষণও সেরকম। খুব দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে আবার পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বাড়তে পারে। ইতিমধ্যে কেজিতে ৩০ টাকা বেড়েছে।

রামপুরা থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে পাঁচ কেজি পেঁয়াজ কেনা রাসেদুল হক বলেন, গত বছর পেঁয়াজ নিয়ে কম কাণ্ড হয়নি। আড়াইশ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ কিনতে হয়েছে। এবারও সেই পরিস্থিতি হবে কি না বলা মুশকিল। তাই অল্প কিছু পেঁয়াজ কিনে রাখছি।

অবশ্য কিছুটা স্বস্তির খবর দিয়েছেন বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দীন। রোববার তিনি জাগো নিউজকে বলেছেন, আমরা পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির বিষয়ে যথেষ্ট সচেতন। গতবারের মতো এবার পরিস্থিতি সৃষ্টির কোনো আশঙ্কা নেই। এবার আমরা খুব সতর্ক। এছাড়া আগামী সপ্তাহ থেকে নতুন পেঁয়াজ না ওঠা পর্যন্ত খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি। আশা করি যেটুকু বেড়েছে দু-একদিনের মধ্যে সেটুকু কমে যাবে। টিসিবিসহ দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ মজুত রয়েছে।

ফিরে দেখা অতীত

গত বছরের সেপ্টেম্বরে ভারত রফতানি বন্ধ করলে দেশের বাজারে হু হু করে বেড়ে পেঁয়াজের কেজি ২৫০ টাকা পর্যন্ত উঠে যায়। এরপর পেঁয়াজের দাম কমাতে নানামুখী প্রচেষ্টা চালায় সরকার। মিয়ানমার, মিসর থেকে আমদানি করা হয় পেঁয়াজ। এতে কিছুটা দাম কমে। এরপরও পেঁয়াজের ঝাঁজ ছিল বেশ চড়া। একশ টাকার নিচে পেঁয়াজ মিল ছিল না। ফলে বাধ্য হয়ে বাড়তি দামে পেঁয়াজ কিনতে হয় ক্রেতাদের। কম দামে নিম্ন আয়ের মানুষকে পেঁয়াজ দিতে ট্রাকে বিক্রি শুরু করে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। টিসিবির পেঁয়াজ কেনা নিয়ে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে।

এর মধ্যে গত বছরের নভেম্বর থেকে বাজারে আসতে শুরু করে নতুন দেশি পেঁয়াজ। যার প্রভাবে ক্রেতাদের মধ্যে কিছুটা হলেও স্বস্তি মিলে। ডিসেম্বরেই নতুন পেঁয়াজের কেজি একশ টাকার নিচে নামে যায়। এরপর চলতি বছরের মার্চের শুরুতে রফতানি নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়ার ঘোষণা দেয় ভারত। যার প্রভাবে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম কমে ৪০ টাকায় নামে।

কিন্তু মহামারি করোনার প্রকোপে মার্চের শেষ দিকে পেঁয়াজের দাম আবার কিছুটা বাড়ে। দাম বাড়ায় বাড়তি পেঁয়াজ কেনা শুরু করেন ক্রেতরা। এতে দেশি পেঁয়াজের কেজি ৮০ টাকায় ওঠে। পরিস্থিতি সামাল দিতে মাঠে নামে ভোক্তা অধিদফতর ও র‌্যাব। পেঁয়াজের বাজারে চলে একের পর এক অভিযান।

এর মধ্যেই বাজারে বাড়তে থাকে দেশি পেঁয়াজের সরবরাহ। সঙ্গে আসতে থাকে ভারতের পেঁয়াজ। এতে আবারও দফায় দফায় দাম কমে পেঁয়াজের কেজি ৩০ টাকায় নেমে আসে। তবে ঈদের আগে দেশি পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকায় উঠে। গত মাসেও আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি ২০-২৫ টাকার মধ্যে ছিল। আর দেশি পেঁয়াজ ছিল ৪০-৪৫ টাকার মধ্যে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর