শিরোনাম :
নাসরিনের কান্না ও মানবিক ডিজিএনএম সিদ্দিকা সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি এড.মাওলানা রশিদ আহমদের মৃত্যুতে সিলেট ছাত্রদলের শোক অসুস্থ নার্সিং শিক্ষার্থীর পাশে দাঁড়িয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো সিলেট ওসমানীর নার্সরা মেসির লক্ষ্য পিএসজির হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয় বৃহস্পতিবার থেকে বন্ধ মডার্নার প্রথম ডোজ Radiant Hunt Model Agency বছরের ১ম যাত্রা শুরু করলো Fashion Fair এর মাধ্যমে পৌর নির্বাচনে মেয়র রাবেলকে গোলাপগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির সমর্থন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আ.লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য হওয়ায় অভিনন্দন উজবেকিস্তান-ঢাকা রুটে সরাসরি যাত্রীবাহী ফ্লাইট চালু করতে সহায়তা কামনা বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে বিএনএ ওসমানী হাসপাতালের শ্রদ্ধা নিবেদন বিএসসি ইন নার্সিং কোর্সের পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি দেয়ায় কৃতজ্ঞতা সিলেটসহ পাঁচটি কলেজে পোস্ট বেসিক বিএসসি নার্সিং চালু করায় বিএনএ নেতা সাদেকের অভিনন্দন একটি জনবান্ধব নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর : নার্সদের প্রত্যাশা স্বনামধন্য ইউরােলজিস্ট ডা. হাবিবুর রহমানের রােগমুক্তি কামনায় দোয়া বিজয় দিবসে বাংলাদেশ মানবাধিকার আন্দোলন এর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন বিজয় দিবসে বিএনএ ওসমানী হাসপাতাল শাখার শ্রদ্ধা নিবেদন গোলাপগঞ্জ ফুলসাইন্দে ২য় নাইট মিনি ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন শেষ হলো MODISH এর মডেল গ্রুমিং ওয়ার্কশপ এর ফাইনাল ক্লাস সেল্টার নতুন কমিটি : খালেদ প্রেসিডেন্ট, সুলতান সেক্রেটারি অ্যান্টিজেন টেস্ট: বিএনএ ওসমানী শাখার কৃতজ্ঞতা জকিগঞ্জে বারহাল প্রবাসী ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তা প্রদান শীতের পা ফাটা সিলেটে শুরু হলো MODISH এর মডেল গ্রুমিং ওয়ার্কশপ সিলেট ইউনানী কলেজে প্রহসনের ভর্তি পরীক্ষা; জলিল-নূরুল সিন্ডিকেট বেপরোয়া করোনাক্রান্ত ড. মোমেন দম্পতীর সুস্থতায় দোয়া কামনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সুস্থতা কামনায় বিএনএ ওসমানী শাখার মিলাদ ও দোয়া ওসমানী হাসপাতালের বিদায়ী ও নবযোগদানকৃত পরিচালককে বিএনএ’র সংবর্ধনা করোনা টিকার সম্ভাব্য দাম জানাল মডার্না রায়হান হত্যাকারীদের শাস্তি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত মানবাধিকার কর্মীরা সক্রিয় পর্যবেক্ষণ করবে মহাসচিব এবার দোয়ারাবাজারে কৃষকের মুখে হাসি
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০৭ অপরাহ্ন




নাসরিনের কান্না ও মানবিক ডিজিএনএম সিদ্দিকা

প্রতিবেদকের নাম / ১৪৭ Time View
আপডেটের সময় : বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ নার্সিং পেশার মূল ব্রত মানবসেবা। মানবিক এই পেশায় যারা কাজ করেন তারা নিজেদেরকে সঁপে দেন মানুষের তরে। রোগীর সুস্থতার হাসিতে তারা খুঁজেন তৃপ্তি। কিন্তু এই পেশার সাথে জড়িতদের জীবনের হাসি-কান্নার খবর রাখে না কেউ।

মানবতার তরে জীবন উৎসর্গ করে যারা নার্সিং পেশাকে বেছে নিয়েছেন তাদের কান্নার শব্দ পৌঁছে না অন্য কারো কানে। তবে অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে কোভিডের এই কঠিন সময়ে ভাল সময় পার করছেন দেশের নার্সিং সমাজ। আর এর একমাত্র কারণ হচ্ছে বর্তমানে দেশের নার্সিং সমাজের মাথার উপর বটবৃক্ষের মতো ছায়া হয়ে আছেন একজন মানবিক অভিভাবক সিদ্দিকা আক্তার।

তিনি নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব)। সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোছা. নাসরিন নাহার। আমার সহকর্মী। ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর তার প্রথম পোস্টিং এই হাসপাতালে।

নাসরিনের বাড়ি রাজশাহী জেলার বাঘা উপজেলায়। বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগদানের পর থেকে সে তার নিজ এলাকায় বদলির জন্য অনেক চেষ্টা করে আসছে, কিন্তু বদলী হয়নি। নাসরিনের স্বামী রাজশাহীতে একটি প্রাইভেট কোম্পানিকে চাকরি করেন। আড়াই বছরের শিশুসন্তানকে নিয়ে পরিবার-স্বজন ছেড়ে বিশ্বম্ভরপুর থাকতে হয় নাসরিনকে। বর্তমানে সে ৮ মাসের অন্ত:স্বত্তা। কঠিন এই সময়ে পরিবার-পরিজন ছেড়ে বিশ্বম্ভরপুরে চাকুরি করা তার পক্ষে প্রায় অসম্ভব হয়ে ওঠে। সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরের মতো প্রত্যন্ত এলাকায় কর্মস্থল হওয়ায় নার্সিং অধিদপ্তরের সাথেও ঠিকমতো যোগাযোগ করতে পারছিল না সে। সবমিলিয়ে অনাগত সন্তান আর চাকরি নিয়ে মারাত্মক দুশ্চিন্তায় সময় কাটছিল নাসরিনের। কর্মস্থলের ভিন্নতার কারণে নাসরিনের সাথে আমার দেখা হয়নি কোনদিন। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কারণে সারাদেশের নার্সিং কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ হয়। ভাগাভাগি হয় সুখ-দু:খ। মাস কয়েক আগে নাসরিন ম্যাসেঞ্জারে নক করে। তার সমস্যার কথা জানায়। নিজ এলাকা রাজশাহীর বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বদলি হওয়ার জন্য নার্সিং অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সিদ্দিকা আক্তার স্যারের দৃষ্টি আকর্ষনের অনুরোধ জানায়।

গত সোমবার (০৬ সেপ্টেম্বর) নাসরিন ফের ফোন করে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। নাসরিনের কান্না শুনে খারাপ লাগে। মনে হয় দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে হয়তো এমন আরো কতো সহকর্মী কতো সমস্যা নিয়ে কান্নায় বুক ভাসাচ্ছে। সাহস করে ফোন দেই নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরে মহাপরিচালক সিদ্দিকা আক্তার স্যারকে। মনের মধ্যে একটা বিশ্বাস ছিল নার্সিংবান্ধব স্যার ফেরাবেন না। ফোন দেয়ার পর স্যারের কথা শুনে আমি পুরোই হতবাক। সিদ্দিকা স্যার জানালেন, প্রতিদিনই সারাদেশ থেকে নার্সিং কর্মকর্তাদের নানা সমস্যার আবেদন আসে। সবগুলোই তিনি নিজহাতে গুরুত্বসহকারে দেখেন। এমনকি যেসব নার্সিং কর্মকর্তারা সাক্ষাতের নির্ধারিত দিনে অধিদপ্তরে যান তাদের প্রত্যেকের সাথে মহাপরিচালক সিদ্দিকা স্যার ও অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) মো. নাসির উদ্দিন (উপসচিব) স্যার সরাসরি দেখা করে তাদের সমস্যা শুনেন এবং গুরুত্ব বিবেচনায় তা দ্রুততার সাথে সমাধান করেন। তার প্রমাণ পেলাম নাসরিনের বদলির আদেশ দেখে।

আমি স্যারের কাছে মানবিক এই বিষয়টি তুলে ধরার পরদিনই (৭ সেপ্টেম্বর) নাসরিনের বদলির আদেশ হয়। নাসরিন বিশ্বম্ভরপুর থেকে তার নিজ এলাকা রাজশাহীর বাঘায় যাচ্ছে। এক বদলির আদেশ যেন নাসরিনের জীবন বদলে দিয়েছে। চাকরি আর অনাগত সন্তান নিয়ে নাসরিনের জীবনে যে সংকট আর শঙ্কা তৈরি হয়েছিল, ডিজিএনএম সিদ্দিকা স্যারের এক মহানুভবতায় সেটা যেন পাল্টে গেছে। ফোনে নাসরিন আবারো কাঁদলো। তবে এ কান্না কষ্টের বা অজানা শঙ্কার নয়। এ কান্না আনন্দের, কৃতজ্ঞতার। নাসরিন কাঁদছিল আর কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছিল সিদ্দিকা স্যারের প্রতি। এমন শত শত নাসরিনের আনন্দাশ্রুতে হয়তো লুকিয়ে আছে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সিদ্দিকা আক্তার স্যারের মহানুভবতা।

আমার কর্মজীবনে তন্দ্রা শিকদার স্যার ও সিদ্দিকা স্যারের মতো এতো নার্সিং কর্মীবান্ধব কর্মকর্তা দেখিনি। বর্তমানে সিদ্দিকা স্যারের নেতৃত্বে যেভাবে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালিত হচ্ছে তা দেশের যে কোন সেক্টরের জন্য উদাহরণ হতে পারে। সিদ্দিকা আক্তার স্যারের মতো অভিভাবক মাথার উপর থাকলে প্রান্তিক পর্যায়েরও যে কোন কর্মী তার জীবনের সর্বোচ্চ দিয়ে দায়িত্ব পালন করতে পিছপা হবে না।

লেখক: ইসরাইল আলী সাদেক , সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর